৮ম শ্রেণির ইসলাম শিক্ষা অ্যাসাইনমেন্ট এর সমাধান

শিক্ষা
Saturday-Mar-2021

৮ম শ্রেণির ইসলাম শিক্ষা অ্যাসাইনমেন্ট এর সমাধান

৮ম শ্রেণীর ইসলাম শিক্ষা সমাধান । মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক অধিদপ্তর কর্তৃক প্রকাশিত। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক অ্যাসাইনমেন্ট ২০২১ ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণি পর্যন্ত ১ম নির্ধারিত কাজ (Assignment) (১ম সপ্তাহের জন্য)। নতুন করে সকল শ্রেণির পুনর্বিন্যাস করা পাঠ্যসূচির আলোকে অ্যাসাইনমেন্ট ও মূল্যায়নের নির্দেশ দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। এই কার্যক্রম আগামী ২০ মার্চ থেকে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কার্যকর করতে হবে । ইতিমধ্যে আ্যাসাইনমেন্ট এর কাজ শুরু হয়ে গেছে ।

Class 8 Islamic Studies Assignment Answer

তাই সকল শ্রেণির এসাইনমেন্ট এবং সমাধান নিয়ে আমরা আপনাদের সাথেই আছি Media Bazar 24 এখানে ‍Shikha News ক্যাটাগরিতে  আপনারা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক অ্যাসাইনমেন্ট ২০২১ইং – ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণি পর্যন্ত সকল বিষয়ের সমাধান পাবেন( প্রতি সপ্তাহের ) খুব সহজেই সবার আগে সংগ্রহ করতে পারবেন ।  শ্রেণির ইসলাম শিক্ষা  অ্যাসাইনমেন্ট প্রশ্ন ও উত্তর সংগ্রহ। নিচে দেখুনঃ

 শ্রেণির ইসলাম শিক্ষা অ্যাসাইনমেন্ট

ইসলাম শিক্ষা  অ্যাসাইনমেন্ট  শ্রেণি

নির্ধারিত কাজঃ

প্রশ্নঃ মনে করো তোমার ঘনিষ্ঠ একজন সহপাঠীরা আচরণে মুনাফিকের লক্ষণ পরিলক্ষিত হয় তাকে প্রকৃত মুমিন বান্দা হতে সহায়তা করার জন্য তুমি কি কি উদ্যোগ নিতে পারে সম্পর্কিত একটি কর্ম পরিকল্পনা তৈরি করো।

উত্তরঃ

সংকেত-১ উত্তরঃ আমরা জানি যে মুনাফিকদের চিহ্ন তিনটি। প্রথমত কথায় কথায় মিথ্যা কথা বলে। ওয়াদা করলে তা ভঙ্গ করে। আমানতের খেয়ানত করে।

সংকেত-২ঃ উক্ত আচরণগুলো কেন ক্ষতিকর তার ব্যাখ্যা করো।

উত্তরঃ মুখে ঈমানের শিকারও অন্তরে অবিশ্বাস করাকে নিফাক বলা হয়। যে ব্যাক্তি এরূপ করে থাকে তাকে বলা হয় মুনাফেক। মুনাফিকদের চিহ্ন তিনটে। মুনাফিকরা প্রকাশ্যে নিজেদের মুসলমান বলে দাবি করে গোপনে ইসলামকে অস্বীকার করে। মুনাফিকদের অবস্থা সম্পর্কে আল্লাহ তায়ালা বলেছেন যখন তারা ঈমানদার দের সাথে মিলিত হয় তখন বলে আমরা ঈমান এনেছি আবার যখন তারা গোপনে তাদের শয়তানদের সাথে মিলিত হয় তখন বলে আমরা তোমাদের সাথে আছি আমরা তাদের সাথে ঠাট্টা-তামাশা করে থাকি।

৮ম শ্রেণীর ইসলাম শিক্ষা সমাধান

সংকেত-৩ঃ উক্ত বিষয়ে কুরআন ও হাদিসের উদ্ধৃতি।

উত্তরঃ নিফাক হল নৈতিকতা ও মানবিকতার আদর্শের বিপরীত কাজ। মুনাফিকরা সব ধরনের অন্যায় ও মন্দ কাজ করে থাকে। উত্তম আচরণ ও উত্তম চরিত্র তারা কখনো অনুসরণ করে না। মিথ্যা ও প্রতারণায় তাদের প্রধান কাজ।
আল্লাহ তায়ালা বলেন, মুনাফিকরা নিশ্চয় মিথ্যাবাদী (সূরা আল মুনাফিকুন। ) অপরদিকে আমাদের মহানবী রাসূল সাল্লাল্লাহু সাল্লাম বলেন, মুনাফিকের চিহ্ন চিহ্ন তিনটে যখন কথা বলে মিথ্যা বলে ওয়াদা করলে তা ভঙ্গ করে এবং যখন তার নিকট কোন কিছু করছি তো রাখা হয় তখন তার খেয়াল করে (বুখারী ও মুসলিম হাদিস)।

অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ৮ম শ্রেণি ইসলাম শিক্ষা

সংকেত-৪ঃ সহপাঠীর মুনাফিকী আচরণ দূর করার উপায়।

উত্তরঃ আমাদের কোন সহপাঠী যদি মুনাফিকের মত আচরণ করে থাকে তাহলে আমাদের উচিত তাকে সে পথ থেকে দূরে সরিয়ে আনা। প্রথমত আমরা তাদেরকে কুরআন ও হাদিসের আলোকে মুনাফিকদের যে ভয়ংকর পরিণাম তা তুলে ধরবো। কারণ মুনাফিকদের পরকালে পরম শাস্তির ব্যবস্থা করা হয়েছে। মুনাফিক ব্যক্তিরা পরকালের পাশাপাশি ইহকালেও অনেক সমস্যার সম্মুখীন হবে। যে ব্যক্তি মিথ্যা কথা বলে ওয়াদা ভঙ্গ করে এবং আমানতের খেয়ানত করে তাকে সমাজে কেউ বিশ্বাস করবে না। তার প্রতি মানুষের কোন ধরনের সম্মান থাকবে। আমরা আমাদের সহপাঠীদের কোরআন ও হাদিসের পাশাপাশি সামাজিক সমস্যা সৃষ্টি হবে তা বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করব। তাহলে সে অবশ্যই মুনাফিকের আচরণ দূর করার চেষ্টা করবে।

সংকেত-৫ঃ সহপাঠীকে মুমিন হওয়ার জন্য তোমার পদক্ষেপ

উত্তরঃ ঈমান সম্পর্কে ধারনাঃ কল্যাণ ও সাফল্য লাভ করেন সকলে তাকে ভালোবাসে। আমরা যদি আমাদের সহপাঠীদের মাঝে ঈমান আনতে পারে তাহলে অবশ্যই সে একজন মুমিন হতে পারবে। কেননা একজন মুমিন হওয়ার জন্য সর্বপ্রথম তার মাঝে ঈমান থাকা জরুরি।

মুমিন হওয়ার গুরুত্বঃ যে ব্যক্তি ঈমান গ্রহণ করে তাকে বলা হয় মুমিন। মুমিন ব্যক্তি আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের প্রিয় পাত্র আল্লাহতালা মুমিনদের ভালোবাসেন আখিরাতে তিনি মুমিনদের চিরশান্তির জান্নাত দান করবেন মুমিনগণ সেখানে চিরকাল থাকবেন জান্নাতের নেয়ামত ভোগ করবেন।

সকল শ্রেণির এসাইনমেন্ট সমাধান দেখুন এখানে 

Leave a Reply